বৃহস্পতিবার, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আজ বৃহস্পতিবার | ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাজুস) ফেয়ার-২০২৪ দ্বিতীয় দিনে বক্তব্য রাখেন সায়েম সোবহান আনভীর।

শুক্রবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১০:৩৭ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাজুস) ফেয়ার-২০২৪ দ্বিতীয় দিনে বক্তব্য রাখেন সায়েম সোবহান আনভীর।

শরীফ আহমেদ প্রতিবেদনঃ

সোনায় বিনিয়োগ, ভবিষ্যতের সঞ্চয়’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে দেশের অলংকার শিল্পকে এগিয়ে নিতে তৃতীয়বারের মতো রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) নবরাত্রি হলে চলছে তিন দিন ব্যাপি বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাজুস) ফেয়ার-২০২৪। শুক্রবার দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে মেলা। এদিন বিকেল ৪টায় বাজুস মেলাকে কেন্দ্র করে ‘জুয়েলারি শিল্প বিকাশে অর্থায়নের চ্যালেঞ্জ ও করণীয়’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।বাজুসের প্রেসিডেন্ট সায়েম সোবহান আনভীরের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি ও বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংকের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. হাফিজ মো. হাসান বাবু, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান আসিফ ইব্রাহিম প্রমুখ।

‘বাজুস ফেয়ার-২০২৪’-এর আয়োজন করেছে দেশের ঐতিহ্যবাহী সর্ববৃহৎ বাণিজ্য সংগঠন বাংলাদেশ জুয়েলারি অ্যাসোসিয়েশন (বাজুস)।

সারাদেশের প্রায় ৪০ হাজার জুয়েলারি প্রতিষ্ঠানের সংগঠন বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাজুস) এই মেলার তৃতীয়বারের মতো আয়োজন করেছে। যা চলবে আগামী ১০ই (ফেব্রুয়ারি) পর্যন্ত। 

বাজুস ফেয়ার প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের জন্য উম্মুক্ত থাকবে। বাজুস ফেয়ারে প্রবেশ টিকিটের মূল্য জনপ্রতি ১০০ টাকা। ৫ বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের টিকিট লাগবে না। এছাড়া জুয়েলারি প্রতিষ্ঠানগুলো ক্রেতাদের মনোযোগ আকর্ষণে বিশেষ অফার দিচ্ছেন। 

এবার বাজুস ফেয়ারে ৯টি প্যাভিলিয়ন, ১৭টি মিনি প্যাভিলিয়ন ও ১৫টি স্টলে দেশের স্বনামধন্য ৪১টি জুয়েলারি প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করবে। বাজুস ফেয়ারে -২০২৪ এ প্যাভিলিয়নে অংশ নেয়া ৯টি প্রতিষ্ঠান হলো ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড লিমিটেড, অলংকার নিকেতন, আমিন জুয়েলার্স, ভেনাস জুয়েলার্স, কুঞ্জ জুয়েলার্স, রয়েল মালাবার জুয়েলার্স, আপন জুয়েলার্স, জড়োয়া হাউস ও রিজভী জুয়েলার্স। 

মিনি প্যাভিলিয়নে অংশ নেওয়া ১৭টি প্রতিষ্ঠান হলো ডায়মন্ড বাজার অ্যান্ড গোল্ড, গৌরব জুয়েলার্স, আলভী জুয়েলার্স, আইকে জুয়েলার্স লিমিটেড, চৌধুরী গোল্ড, রিয়া জুয়েলার্স, আফতাব জুয়েলার্স, ডায়মন্ড হাউস, রয়েল ডায়মন্ড, দি ডায়মন্ড স্টোর, ড্রিমজ ইন্সট্রুমেন্ট টেকনোলজি, রাজ জুয়েলার্স লিমিটেড, জারা গোল্ড, জায়া গোল্ড অ্যান্ড ডায়মন্ড, সাস ইন্টারন্যাশনাল, দি পার্ল ওয়েসিস জুয়েলার্স ও ডি ডামাস দি আর্ট অব জুয়েলারি।

স্টলে অংশ নেওয়া ১৫টি প্রতিষ্ঠান হলো: গোল্ডেন ওয়ার্ল্ড জুয়েলার্স, দি আই. কে জুয়েলার্স, গীতাঞ্জলী জুয়েলার্স, আয়াত ডায়মন্ডস, সিরাজ জুয়েলার্স, পাপড়ি জুয়েলার্স, ডায়মন্ড প্যালেস, ডায়মন্ড স্কয়ার, নিউ বসুন্ধরা জুয়েলার্স, রাজঐশ^রী, ডি গোল্ড প্যাশন, বাংলাদেশ সায়েন্টিফিক ইন্সট্রুমেন্ট কোম্পানী, জেমস গ্যালারী এন্ড ডায়মন্ড, খোকন জুয়েলার্স ও আরএন মাইক্রোটেক সহ বিভিন্ন স্টল অংশ গ্রহণ করেছেন।




সর্বশেষ  
জনপ্রিয়  

ফেসবুকে যুক্ত থাকুন