নারায়ণগঞ্জের ডাক | logo

২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১৬ই জানুয়ারি, ২০২১ ইং

নাসিক নির্বাচনে এবারের ট্রাম কার্ড কে?

প্রকাশিত : জানুয়ারি ১৩, ২০২১, ০৭:২০

নাসিক নির্বাচনে এবারের ট্রাম কার্ড কে?

দৈনিক নারায়নগঞ্জের ডাকঃ

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের আরো প্রায় ৯/১০ মাস বাকি । এরই মধ্যে নির্বাচনকে সামনে রেখে শহরে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে গ্রুপিং শুরু হয়ে গেছে। এছাড়াও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখেই সাংসদ শামীম ওসমান ও মেয়র আইভীর দ্বন্দ্বও চরম আকার রূপ নিতে শুরু করেছে। এ জন্য ট্রামকার্ড হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহাকে।

আর গত নাসিক নির্বাচনে ট্রামকার্ড হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছিল মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনকে। ইতিমধ্যে নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাঠে নেমেছে। তারই ধারাবাহিগতায় সম্ভাব্য প্রার্থী খোকন সাহার বিরুদ্ধে বর্তমান মেয়র সেলিনা হায়াত আইভী মামলাও করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন সাধারণ মানুষ। আর মামলার জবাব মামলা দিয়েই দেয়া হবে বলে ঘোষনাও দিয়েছেন খোকন সাহা। এছাড়াও চলছে নির্বাচন ঘিরে গ্রুপিং।

নির্বাচনকে সামনে রেখে উন্নয়ণমূলক কাজ পরিদর্শন ও উদ্বোধনে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন মেয়র সেলিনা হায়াত আইভী। যা নিয়েও গ্রুপিং চলছে। গতকাল রবিবার ১৬নং ওয়ার্ডে মুক্তিযোদ্ধা সড়ক উদ্বোধন করেন মেয়র আইভী। ব্যাপক আয়োজনের মধ্যদিয়ে সড়কটি উদ্বোধন করা হলেও স্থানীয় কাউন্সিলর নাজমুল আলম সজলকে দেখা যায়নি। কিন্তু মেয়রের সাথে সাবেক কাউন্সিলর ওবায়দুল্লাহ, প্যানেল মেয়র বিভা হাসানসহ শুধুমাত্র মেয়রের অনুসারিরা উপস্থিত ছিলেন। এর ৪/৫ দিন আগে ১৭নং ওয়ার্ডে বিভিন্ন উপন্নয়ণমূলক কাজ পরিদর্শন করেছিলেন মেয়র সেলিনা হায়াত আইভী। 

সেখানে স্থানীয় কাউন্সিলর আব্দুল করিম বাবু উপস্থিত ছিলেন না। মূলত উন্নয়ণমূলক কাজ নিয়ে মেয়র আইভী ব্যস্ত সময় পাড় করলেও উন্নয়ণমূলক কাজ নিয়ে গ্রুপিং করার অভিযোগ করেছেন একাধিক কাউন্সিলর। তবে নাসিক নির্বাচনকে ঘিরে সামনের দিনগুলোতে আরো চমক ও নাটকীয়তা অপেক্ষা করছে এমন মত রাজনৈতিক বোদ্ধাদের। আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীও মধ্যে লড়াই হবে নাকি আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে লড়াই হবে এ নিয়ে হিসেব কষতে শুরু করেছে অনেকে। গত নির্বাচনে আইভীর বিরুদ্ধে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন এড. সাখাওয়াত হোসেন খান।

কিন্তু আগামীতে বিএনপির মনোনয়ন পেতে নতুন প্রার্থীরাও প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ইতিমধ্যে বন্দর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুল মেয়র নির্বাচন করার ঘোষনা দিয়েছেন। এছাড়াও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সদর-বন্দর আসনে দলীয় মনোনয়ন চাইলেও মহানগর বিএনপির সভাপতি আবুল কালামকে না দিয়ে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী এসএম আকরামকে ধানের শীষ প্রতীক দেয়া হয়েছিল। তাই আগামী নাসিক নির্বাচনে আবুল কালামও নির্বাচনী মাঠে নামার সম্ভাবনা রয়েছে। শুধু আবুল কালামই নয়, জেলা বিএনপির আহবায়ক এড. তৈমূর আলম খন্দকারও প্রার্থীরা চাইবেন-এমনটা বলছেন তার অনুসারিরা। কেননা নাসিক প্রথম নির্বাচনে অনেকটা বিজয় নিশ্চিত থাকা সত্বেও কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তে একদিন আগে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলেন তৈমূর। আর এবার জেলা বিএনপির আহবায়ক থাকায় নির্বাচনের আগে নিজের অবস্থান শক্ত করবেন এমন প্রত্যাশা তার অনুসারিদের।

সূত্রমতে, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন নিয়ে নিয়ে চলছে নানামুখী বিশ্লেষন। এখনই আওয়ামী লীগ-বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থী নিয়ে হিসেব কষছে রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতা ও সম্ভাব্য প্রার্থীরা। তবে নির্বাচনে কেউ কাউকে ছাড় দিবে না এমন মত দিচ্ছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতারা। তবে এবারের নির্বাচন নিয়ে বিএনপিতে তেমন কোন তৎপরতা না থাকলেও আওয়ামী লীগের রাজনীতি পুরোপুরি জমে উঠেছে। বিশেষ করে খোকন সাহার বিরুদ্ধে মেয়র আইভীর মামলা দায়েরর পরই নির্বাচনী মেকানিজম শুরু হয়ে গেছে। তবে নির্বাচনের আগে আওয়ামীলীগের আরো প্রার্থীর সংখ্যা বাড়ার সম্ভাবনা থাকলেও আপাতত মাঠে রয়েছেন খোকন সাহা। ইতিমধ্যে খোকন সাহাকে প্রতিদ্বন্দি ভাবছেন মেয়র আইভী




মোবাইলঃ 01317838887
ইমেইলঃ narayanganjerdak@gmail.com