বৃহস্পতিবার, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আজ বৃহস্পতিবার | ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

লিখিত অভিযোগ ও সংবাদ প্রকাশের পর আরো বেপরোয়া শ্যামপুর সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের কোটিপতি পিয়ন তাজুল

রবিবার, ১৪ জানুয়ারি ২০২৪ | ২:৪৩ অপরাহ্ণ

লিখিত অভিযোগ ও সংবাদ প্রকাশের পর আরো বেপরোয়া শ্যামপুর সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের কোটিপতি পিয়ন তাজুল

(ফলোআপ)

নিজস্ব প্রতিনিধি : শ্যামপুর সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের অফিস সহায়ক তাজুল ইসলাম। সামান্য বেতনের চাকুরী করে জীবন চলানো যেখানে কষ্টসাধ্য সেখানে তিনি গড়ে তুলেছেন সম্পদের পাহাড়। তার চালচলনে এখন বেশ রাজকীয়তা, হঠাৎ আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ নয়, যেন সুবিশাল বটগাছ বনার রহস্য নিয়ে খোদ এলাকাবাসীর মাঝে চলছে কানাঘুষা। তার বিরুদ্ধে রয়েছে নানা অনিয়ম আর দুর্নীতির অভিযোগ। ইতিপূর্বে আইন মন্ত্রণালয়, দুর্নীতি দমন কমিশন দুদক ও সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ হয়েছে। সংবাদ প্র্রকাশিত হয়েছে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে। তারপরেও অদৃশ্য খুঁটির জোরে বারবার তিনি থেকে যাচ্ছেন ধরাছোঁয়ার বাইরে। রয়েছেন চাকুরীতে বহাল।

অনুসন্ধানে জানা যায়, থামছেই না শ্যামপুরে সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের কোটিপতি পিয়ন তাজুল ইসলামের অনিয়ম দুর্নীতি। দলিল রেজিস্ট্রি থেকে শুরু করে সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের প্রত্যেকটি বিষয়ে হস্তক্ষেপ করেন তাইজুল ইসলাম। এই অফিসে ঘুষের লেনদেনের শক্তিশালী সিন্ডিকেটের নিয়ন্ত্রকও তিনি। তার কথা ছাড়া অফিসের একটি কাজও হয় না।
অভিযোগ উঠেছে, দলিল রেজিস্ট্রি থেকে শুরু করে প্রতিটি বিষয়ে ঘুষের টাকা লেনদেন করেন পিয়ন তাজুল ইসলাম । দুর্নীতির মাধ্যমে উপার্জনের অর্থ দিয়ে কোটি টাকার সম্পদ। গড়ে তুলেছে একাধিক বাড়ি ও ফ্ল্যাট। কদমতলী থানা ৬৫ নম্বর ওয়ার্ডে হোল্ডিং নম্বর ২৫২/৩, মেরাজনগর বি-ব্লক, মেইন রোডে এই বাড়ির পাশেই তার রয়েছে নির্মানাধীন ১০ তলা ভবন। গোপন সূত্রে জানা গেছে, এই ভবনটি শ্যামপুর সাব-রেজিস্ট্রার অফিসের পিয়ন তাজুল ইসলাম সহ ৪ জনের। অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, ২৯-০৭-২০২০ইং তারিখে সম্পাদিত ৩৯০২ দলিলমূলে সাহারা বেগম এর নামে প্লট ও ফ্ল্যাট রয়েছে। সাহারা বেগম পেশায় একজন গৃহিনী। গৃহিনী হওয়া সত্ত্বেও এত সম্পত্তি কিভাবে পেলেন তার সঠিক উত্তর পাওয়া যায় নি।

এই বিষয়ে জানতে শ্যামপুর সাব-রেজিষ্ট্রার মোঃ শাহিদুর রহমান এর কাছে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি। এ বিষয়ে তাজুল ইসলাম জানান, আমি সামান্য কর্মচারী। আমার পক্ষে অনিয়ম দুর্নীতি অসম্ভব। একজন অফিসের পিয়ন কিভাবে রাতারাতি এতো অর্থ সম্পত্তির মালিক হলো তা খতিয়ে বের করতে প্রশাসনেরর হস্তক্ষেপ দাবী করেছেন সেবাগ্রহীতা।




সর্বশেষ  
জনপ্রিয়  

ফেসবুকে যুক্ত থাকুন