নারায়ণগঞ্জের ডাক | logo

২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

রাস্তা চলাচলের সচেতন মূলক নিয়ম

প্রকাশিত : জানুয়ারি ১১, ২০২১, ১৯:১৯

রাস্তা চলাচলের সচেতন মূলক নিয়ম

ফাহাদুল ইসলামঃপথ চলার সময় আমাদের যেমন অনেক বিড়ম্বনায় পড়তে হয় তেমনি আবার আমরাই হয়ে যাই অনেকের জন্য অসুবিধার কারণ। রাস্তায় চলাচলের কিছু সাধারণ নিয়ম নিম্নে তুলে ধরা হলো।

১. হাঁটতে হাঁটতে পরিচিত কারও সাথে দেখা হলে চলাচলের মাঝপথেই না দাঁড়িয়ে অন্য পথচারীদের কথা ভাবুন। একটু জায়গা ছেড়ে সাইডে দাঁড়িয়ে কথা বলুন।

২. রাস্তায় চলাচলের সময় এদিক-সেদিক থুথু ফেলা থেকে বিরত থাকুন। এমনকি আপনি যদি কয়েক তলা উপরে থাকেন, তাহলে নিচে কিছু ফেলার সময় দেখুন কারও শরীরে ফেলছেন কি না। যদিও এ কাজটি করা একেবারেই উচিত নয়। কোনো কিছু ফেলতে ময়লার ঝুড়ি বা ডাস্টবিন ব্যবহার করুন।

৩. মোবইলে কথা বলতে বলতে রাস্তা পার হবেন না, আগে কথা শেষ করুন। আর কথা বলা বা কল দেওয়া বা কল রিসিভ করা খুবই জরুরি হলে দুই পাশে খেয়াল রেখে হাঁটুন। যদিও এটা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ।

৪. আবর্জনা, কাগজের টুকরা, ফলের খোসা ও অন্যান্য ময়লা রাস্তায় ফেলা থেকে বিরত থাকুন। ‘আমি না ফেললে কী হবে, সবাই তো ফেলে’-এমন অজুহাত ব্যবহার না করে আজকে থেকে রাস্তায় বা পার্কে বা চলার পথে কোনো আবর্জনা ময়লা ফেলা বন্ধ করুন। ময়লা নির্দিষ্ট স্থানে ফেলুন। আপনার সাথে দামি জিনিসপত্র থাকলে সেটির দিকে খেয়াল রাখুন।

৫. ছোট ছেলে-মেয়েদের নিয়ে রাস্তায় হাঁঁটার সময় গাড়ি যেদিকে চলাচল করে, তার উল্টোদিকে তাদের হাত ধরে হাঁটুন।

৬. আপনার খুব দ্রুত যাওয়া জরুরি, দ্রুত চলাচলের সময় কারও গায়ে ধাক্কা লাগার আগে সতর্ক হন। অসতর্ক ভাবে ধাক্কা লাগলে ভদ্রভাবে ‘দুঃখিত’ বা ‘স্যরি’ বলুন।

৭. ধীরে ধীরে হাঁটছেন কারণ তেমন তাড়া নেই বা শারীরিক দিক থেকে অসুস্থ, তাহলে পথের মাঝ বরাবর না হেঁটে একপাশে জায়গা ছেড়ে হাঁটুন।

৮. দোকান থেকে কিছু কিনছেন রাস্তা আটকে না দাঁড়িয়ে দোকানের এক পাশে এমনভাবে দাঁড়ান যেন লোক চলাচলের অসুবিধা না হয়।

৯. রিকশায় বা গাড়িতে চলাকালীন কিছু ছুঁড়ে মারবেন না। এতে করে সেটি যে কারও গায়ে লাগতে পারে। পথে চলাচলকারী ব্যক্তির জায়গায় নিজেকে কল্পনা করুন। গাড়ির গায়ে আরেক গাড়ি লেগে গেছে কিংবা রিকশার সাথে আরেক রিকশা লেগে গেছে, আপনি যদি যাত্রী হয়ে থাকেন সমস্যা না বাড়িয়ে নিজ চালককে শান্ত হওয়ার জন্য বলুন। ভুল না হলেও অন্য চালককে দুঃখিত বলুন। কারণ পেছনে আরও অনেক গাড়ির যাত্রীদের অসুবিধা হচ্ছে।

১০. সবাইকেই ঘরে ফিরতে হবে, কাজে যেতে হবে তাই প্রতিযোগিতা করে গাড়ি বা মোটরসাইকেল চালানো থেকে বিরত থাকুন।

১১. রাস্তা পারাপারের সময় ডানে বামে ভালো করে তাকান, একদিকে তাকিয়ে রাস্তা পার হবেন না। কারণ ভুল রাস্তায়ও আইন ভঙ্গ করে গাড়ি চালানো হয়। সুতরাং নিজে সতর্ক হয়ে নিরাপদ থাকুন।

১২. রাতে বা সন্ধ্যায় বাসার বাইরে গেলে হাতে টর্চলাইট রাখুন, চলাচলের রাস্তায় গর্তে পরে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

১৩. বাসে বসে জানালা দিয়ে বাহিরে মাথা, হাত বের করবেন না। আপনার পাশে শিশুটিকেও এই প্রশিক্ষণ দিন।

১৪. বাসে সংরক্ষিত মহিলা আসনগুলো শুধু মহিলাদের জন্য বরাদ্দ আর বাকি আসনগুলো নারী-পুরুষ সবার জন্য। তাই মহিলা আসা মাত্রই বরাদ্দকৃত আসনগুলো ছেড়ে দিন।

১৫. কানে হেডফোন লাগিয়ে রাস্তা পারাপার হবেন না।

১৬. মোটরসাইকেল চালানোর সময় ওভারটেক করা থেকে বিরত থাকুন। ওভারটেকিং ও প্রতিযোগিতা করতে গিয়ে অনেক সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে। পথ ও চলাচলের রাস্তা আমাদের সবার। সুতরাং এর ব্যবহারে সচেতন হন, যেন আপনার কারণে অন্য পথচারী বা যাত্রীকে বিড়ম্বনায় পড়তে না হয়। নিজে নিরাপদ থাকুন, অন্যকেও নিরাপদ রাখুন।




সম্পাদক:মোঃ সাকিবুল হাসান ( সাকিব )
ব্যবস্থাপনা : সম্পাদক: মোঃ তারেক হোসেন
অফিস
ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড, হাজী সোনামিয়া মার্কেট, উত্তর সাইনবোর্ড।
মোবাইলঃ 01911031147
ইমেইলঃ dailynarayanganjerdak@gmail.com