বৃহস্পতিবার, ৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
আজ বৃহস্পতিবার | ৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
Home » Slider »

সিদ্ধিরগঞ্জে আমিনুল হক ভূইয়া রাজুর বেপরোয়া চাঁদাবাজ বাহিনী

শনিবার, ২৪ এপ্রিল ২০২১ | ৭:২৭ অপরাহ্ণ | 11Views

সিদ্ধিরগঞ্জে আমিনুল হক ভূইয়া রাজুর বেপরোয়া চাঁদাবাজ বাহিনী

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি:সিদ্ধিরগঞ্জে দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে আমিনুল হক ভূইয়া রাজুর চাঁদাবাজ বাহিনী। ইতিমধ্যে গত কয়েক বছরে মারামারি, হামলা, ভাঙচুর, চাঁদাবাজি সহ নানা ঘটনাকে কেন্দ্র করে সিদ্ধিরগঞ্জে বেশ সমালোচিত এ রাজনীতিক ব্যক্তি। রাজনীতিতে তিনি সিদ্ধিরগঞ্জ থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে পরিচিত। তবে সমালোচিত হচ্ছেন নানা সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে। এমন অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে স্থানীয়দের।গত বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) রাত আনুমানিক ৮টায় মিজমিজি দক্ষিণপাড়া আমজাদ মার্কেট এলাকায় ইন্টারনেট ব্যবসাকে কেন্দ্র করে মারামারির ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী জানায়, নয়ন ও সাঈদ নামে দুজন ঐ এলাকায় ইন্টারনেটের সংযোগ দিতে গেলে দেলোয়ার হোসেন (দোলন), রিপন, আল-আমিন ও আরিফ আমিনুল হক রাজুর নামে চাঁদা দাবি করে। পরে দুই পক্ষের মারামারিতে ৫ জন আহত হয়। উক্ত ঘটনায় পুলিশ ৩ জনকে আটক করে এবং বাকিরা পালিয়ে যায়। অভিযোগ রয়েছে রাজু ও তার সহযোগীরা ইন্টারনেট সংযোগ দিতে আসা কর্মীদের মেরে পুলিশে সোপর্দ করে।এ ঘটনায় জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি শফিকুল ইসলাম শফিক জানান, পারিবারিকভাবে শত্রুতা থাকায় আমিনুল হক আমার ছেলেকে ফাঁসানেরা চেষ্টা করেছে। আমি রাজুর এই অপকর্মের তীব্র নিন্দা জানাই। তিনি বলেন, আমার ছেলে ভারতে পড়ালেখা করে। ছুটিতে সে দেশে এসেছে এবং লকডাউন শেষে ভারতে চলে যাবে। রাজুর চাঁদাবাজি থামিয়ে সৎভাবে জীবন-যাপন করে দেশ ও সরকারের ভাবমূর্তি রক্ষার দাবি জানান স্বেচ্ছাসেবক লীগের এই নেতা।ইতিপূর্বে জালকুড়ি ক্যানেলপাড়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের পয়ঃনিষ্কাশন প্রজেক্টের ঠিকাদার বদর উদ্দিন শেখ (বদু)’র কাছে চাঁদা দাবী করে ঠিকাদারের লোকজনকে মারধর ও জখমের অভিযোগ রয়েছে আমিনুল হক রাজুর বিরুদ্ধে। গত বছরের ৮ অক্টোবরের এ ঘটনায় আমিনুল হক রাজুর বিরুদ্ধে থানায় মামলা রুজু হয়। এর আগে পিয়ার আলী নামে এক জমি ব্যবসায়ীকে চাঁদার জন্য মারধরের অভিযোগ রয়েছে রাজুর বিরুদ্ধে।এছাড়া নাসিক ২নং ওয়ার্ডে ওয়াক্ফ এর সম্পত্তিতে যারা বাড়ি-ঘর তুলে বাস করে আসছে, তাদের ভয়ভীতি দেখিয়ে চাঁদা দাবি করে আসছে বলে অভিযোগ উঠেছে রাজুর বিরুদ্ধে। ইতিমধ্যে ওয়াক্ফ এর ৫৬২ শতাংশ সম্পত্তি উদ্ধারে বেশ তৎপর রয়েছে আমিনুল হক রাজু। এ বিষয়ে তাকে ব্যাপক দৌড়ঝাপ করতে দেখা যাচ্ছে। এছাড়া নাসির নামে এক গ্যারেজ মালিকের কাছ থেকে দীর্ঘদিন মাসিক হারে চাঁদা নিতো রাজু। পরে একসময় চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে ঐ ব্যক্তিকে নানা ধরনের হুমকি-ধমকি প্রদান করলে রাজু বাহিনীর বিরুদ্ধে ঐ গ্যারেজ মালিক প্রশাসনের সরণাপন্ন হন।

গত বছরের ২২ জুলাই মিজমিজি দক্ষিণপাড়ার বাসিন্দা মোঃ জাহাঙ্গীর রাজুর বিরুদ্ধে পুলিশ সুপার বরাবর জমি দখল ও চাঁদাবাজীসহ লিখিত নানা অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগে মোঃ জাহাঙ্গীর উল্লেখ করেন, আমিনুল হক রাজু ২নং ওয়ার্ড সহ আশেপাশের এলাকায় জমি দখল, অবৈধ অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে মাসোয়ারা ও চাঁদাবাজী করে আসছে। গ্যাস সংযোগ, রাস্তা ভরাটের নামে মানুষের কাছ থেকে চাঁদাবাজী করে সে। তাছাড়া কেউ জমি ক্রয়-বিক্রয় করলে রাজুকে চাঁদা দিতে হয়। এসব কাজে রাজি না হলে রাজুর বাহিনী দিয়ে হত্যার হুমকি প্রদান করা হয় এবং নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়।এলাকাবাসীর অভিযোগ, সাধারণ মানুষের কাছ থেকে একের পর এক চাঁদাবাজি করে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে রাজু। চাঁদাবাজীসহ তার এমন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। রাজুর চাঁদাবাজি বন্ধে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকাবাসী।

-Advertisement-
সর্বশেষ  
জনপ্রিয়  

ফেসবুকে যুক্ত থাকুন

-Advertisement-
-Advertisement-