শুক্রবার, ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আজ শুক্রবার | ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

নারয়নগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে সাংবাদিকের উপড় হামলা

বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০ | ৪:০৯ পূর্বাহ্ণ

নারয়নগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে সাংবাদিকের উপড় হামলা

নারায়ণগঞ্জের ডাক.কম ; গত ২১ নভেম্বর নারায়নগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে স্থিরচিত্র সংগ্রহ করার সময় দৈনিক গনজাগরন পত্রিকার ফটো সাংবাদিক আলমগীর ভুইয়া সবুজের উপড় অতর্কিত হামলা চালায় পাসপোর্ট অফিসের কুখ্যাত দালাল খন্দকার আজমল (বাবু) ও তার সহোদর দুই ভাই মোঃ রিয়াদ, মোঃ শুভ,মোঃ রিফাত, মোঃ শাওন সহ আরো অজ্ঞাত ১০/১২ জন দালাল।এসময় তার দুই সহযোগী সাংবাদিকের উপড়ও হামলা চালায়।সন্ত্রাসী ও দালালরা এসময় সবুজের ক্যামেরা ও কেটিভি বাংলা আইপি চ্যানেলের সাংবাদিক সোহরাওয়ার্দীর মেবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে যায়। আহত সাংবাদিক আলমগীর ভুইয়া সবুজ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়ে এসে এ বিষয়ে লুন্ঠিত ক্যামেরা ও মোবাইল ফোন উদ্ধার সহ দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নিতে ফতুল্লা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এ বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও পত্রপত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলে গত কয়েকদিন যাবত দফায় দফায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা নারায়নগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের আশে পাশের ভবন গুলোয় দালালদের আস্তানার দিকে নজরদারী করছে বলে জানাগেছে।সাংবাদিক আলমগীর ভুইয়া সবুজের দায়েরকৃত অভিযোগ তদন্তকারী কর্মকর্তা জানিয়েছেন প্রাথমিকভাবে তদন্তে তারা ঘটনার সত্যতা পেয়েছেন এবং শীঘ্রই আসামীদের কাছ থেকে লুন্ঠিত মালামাল উদ্ধারে যে কোন সময়ে ঝটিকা অভিযান পরিচালনা করবে পুলিশ।নারায়নগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস দালালদের আখড়ায় পরিনত হয়েছে।দালালদের তৎপরতার স্থিরচিত্র সংগ্রহ করতে গেলে দৈনিক গনজাগরন পত্রিকার ফটো সাংবাদিক আলমগীর ভুইয়া সবুজের উপড় অতর্কিত হামলা চালিয়েছে বন্দর থানার একাধিক মামলার আসামী,নারায়নগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের কুখ্যাত দালাল খন্দকার আজমল (বাবু) ও তার সহোদর দুই ভাই মোঃ রিয়াদ, মোঃ শুভ,মোঃ রিফাত, মোঃ শাওন সহ আরো অজ্ঞাত ১০/১২ জন দালাল।মুলত তারাই নিয়ন্ত্রন করেন নারায়নগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস ।নারায়নগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস ফতুল্লা থানাধীন রঘুনাথপুর (সাইন বোর্ড) এলাকায় স্থানান্তরিত হওয়ার পর বন্দর এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসীদের ১০/১২ জন কে সাথে নিয়ে প্রতিদিন সেখানে এসে মহড়া দেয় আজমল ওরফে বাবু ও তার ছোট ভাই রিয়াদ,শুভ গং।তারাই নাকি বর্তমানে নিয়ন্ত্রন করছেন এ অফিসের সব দালালদের বলে জানান স্থানীয়রা।তার মুল কাজ হচ্ছে এসব অপকর্ম নির্বিঘ্ন করতে প্রশাসনের নাম ভাঙ্গিয়ে ও মামলার ভয় দেখিয়ে অন্যান্য দালালদের কাছ থেকে সপ্তাহে ১০০০ টাকা হারে চাঁদা আদায় করা।এ সংবাদ পাওয়ার পর সেখানে সংবাদ ও স্থির চিত্র সংগ্রহ করতে যান দৈনিক গনজাগরন পত্রিকার সাংবাদিক আলমগীর ভুইয়া সবুজ।




সর্বশেষ  
জনপ্রিয়  

ফেসবুকে যুক্ত থাকুন